Class – 9 – English Reference – All Summer in a Day

হে বন্ধুরা, আজ আমরা রেব্র্যাডবেরি রচিত একটি গল্প All Summer in a Day সম্পর্কে আলোচনা করব। এই গল্পটি শুক্রের একদল শিশুর জীবনকে কেন্দ্র করে লেখা হয়েছে, যেখানে প্রতি সাত বছরে একবার মাত্র এক ঘণ্টার জন্য সূর্যের আলো দেখা যায়।

গল্পের প্রধান চরিত্র মার্গোট, যে পৃথিবী থেকে শুক্রগ্রহে আসে এবং তার সূর্যের স্মৃতি রয়েছে। অন্যান্য শিশুরা, যারা সারা জীবন শুক্রগ্রহে বাস করেছে, তাদের কাছে সূর্যের স্বপ্ন একটি কল্পনা মাত্র।

গত সপ্তাহের পর আবার দেখা যাবে। শিশুরা উত্তরে পড়ে এবং তারা সূর্যের আলো দেখতে অপেক্ষা করতে থাকে।

কিন্তু মার্গোট এর সাথে অন্য শিশুরা খারাপ ব্যবহার করে। তারা মার্গোটকে যুক্তিবাদী বলে এবং অপমান তাকে অপমান করে।

যখন সূর্যের আলো দেখা যায়, তখন মার্গোট ঘরের ভিতর একা থাকে এবং সহপাঠীরা সূর্যের আলো তার পথ করে। মার্গো তোমার মনে হয় যে সহপাঠীদের এই খারাপ ব্যবহার করার জন্য তাকে শাস্তি দেওয়া হয়।

গল্পের জীবন, সূর্যের আলো আবার অদৃশ্য হয়ে যায় এবং শিশুরা আবার অন্ধকারের মধ্যে ফিরে আসে। মার্গোট তার একাকীত্বের মধ্যে ফিরে আসে এবং তার চারপাশের অন্ধকারকে শেখে।

All Summer in a Day এটি দুঃখ, একাকী গল্প এবং নেওয়ার ক্ষমতা নেওয়ার একটি ঘটনা এটি আমাদের শেখ যে অনেক কিছু এবং আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে আমরা তা করতে পারি না, তা দিয়ে তাক প্রয়োগের মাধ্যমে শিক্ষা গ্রহণ করা হয়।

Class-9 – English Reference – All Summer in a day

All Summer in a Day – এর ইংরেজি উচ্চারণ

ইট হ্যাড বিন রেইনিং ফর সেভেন ইয়ারস্। থাউজ্যান্ডস্ আপন থাউজ্যান্ডস অফ ডেজ ফিল্ড ফ্রম ওয়ান এন্‌ড টু দি আদার উইথ রেইন। দ্য ডেজ ওয়্যার ফিল্ড উইথ দ্য গাশ অফ ওয়াটার অ্যান্ড এন্ডলেস শাওয়ার্স। হেভি স্টর্মস কজ্ড টাইডাল ওয়েভস টু কাম ওভার দি আইল্যান্ডস। আ থাউজ্যান্ড ফরেস্টস ক্রাশড আন্ডার দ্য রেইন, হ্যাড গ্রোন আপ আ থাউজ্যান্ড টাইমস টু বি ক্রাশড অ্যগেইন। দিজ ওয়াজ দ্য ওয়ে অফ লাইফ ফরেভার অন প্ল্যানেট ভেনাস। হিয়ার ওয়াজ লোকেটেড দ্য স্কুলরুম অফ দ্য চিলরেন বিলংগিং টু মেন অ্যান্‌ড উইমেন হু কেম বাই রকেটস ফ্রম আর্থ। দে সেট আপ আ সিভিলাইজেশন ইন দিস্ রেইনিং ওয়ার্ল্ড।

রেডি?
রেডি।
নাও?
সুন।

উইল ইট হ্যাপেন টুডে, উইল ইট?
লুক, লুক, সি ফর ইয়োরসেল্ফ।

দ্য চিলরেন ইন দ্য স্কুলরুম চ্যাটারড্ অ্যান্ড প্রেস্ড টু ইচ আদার লাইক সো মেনি রোজেস। দে পিয়ারড্ আউট অফ দ্য উইন্‌ডো টু লুক অ্যাট দ্য হিডেন সান।

ইট রেইনড।

ইট’স স্টপিং, ইট’স স্টপিং।

দ্য চিলরেন ওয়্যার অল নাইন ইয়ারস্ ওল্ড। হোয়েন দ্য সান কেম আউট লাস্ট টাইম সেভেন ইয়ারস্ অ্যগো দে ওয়্যার টু ইয়াং। দে কুড নট রিকল দ্য সান হোয়েন ইট কেম আউট ফর জাস্ট অ্যান আওয়ার অ্যান্ড শোড ইটস ফেস টু দ্য স্টান্‌ড ওয়ার্ল্ড।

অল ডে ইয়েস্টারডে দে হ্যাড রেড ইন ক্লাস অ্যাবাউট দ্য সান। দে লার্নড হাও লাইক আ লেমন ইট ওয়াজ অ্যান্‌ড হাও হট। দে হ্যাড রিটেন স্মল স্টোরিজ, এসেজ অর পোয়েমস্ অ্যাবাউট ইট।

আই থিংক দ্য সান ইজ আ ফ্লাওয়ার

দ্যাট ব্লুমস ফর জাস্ট ওয়ান আওয়ার।

দ্যাট ওয়াজ ইয়েস্টারডে। টুডে, অ্যাট দিস মোমেন্ট, দ্য রেইন ওয়াজ স্ল্যাকেনিং। দ্য চিলরেন গ্যাদারড্ অ্যাট দ্য গ্রেট থিক উইনডোজ্।

হোয়্যার’স আওয়ার টিচার?
শিই’ল বি ব্যাক।

শি মাস্ট হারি অর শিই’ল মিস ইট। দ্য রেইন স্ল্যাকেনড্ স্টিল মোর।

দ্য চিলরেন ওয়্যার ইগ্যর টু সি দ্য সান। দে হ্যাড বিন অন ভেনাস অল দেয়ার লাইভস। দে হ্যাড বিন ওনলি টু ইয়ার্স ওল্ড হোয়েন দ্য সান লাস্ট কেম আউট। দে হ্যাড লং সিন্‌স ফরগটেন দ্য কালার অ্যান্‌ড দ্য হিট অফ হাউ ইট রিয়ালি ওয়াজ। দে প্লেড ইন দি একোইং টানেলস্ অফ দি আন্ডারগ্রাউন্ড সিটি অ্যান্ড স্যাং অফ সামার অ্যান্ড দ্য সান।

দ্য রেইন স্টপড়।

ইট ওয়াজ অ্যাজ ইফ আ হারিকেন হ্যাড লস্ট ইটস সাউন্‌ড। দেয়ার ওয়্যার নো মোশানস অর ট্রেমর বাট পিস। দ্য ওয়ার্ল্ড গ্রাউন্‌ডেড টু আ স্ট্যান্‌ডস্টিল। দ্য সাইলেন্‌স ওয়াজ সো ইমেন্‌স ওয়ান উড ফিল অ্যাজ ইফ দ্য ইয়ারস হ্যাড বিন স্টাফড্। দ্য চিলরেন পুট দেয়ার হ্যান্ডস টু দেয়ার ইয়ার্স। দে স্টুড অ্যাপার্ট। দ্য ডোর স্লিড ব্যাক। দ্য স্মেল অফ দ্য সাইলেন্ট ওয়েটিং ওয়ার্ল্ড কেম টু দেম।

দ্য সান কেম আউট।

ইট ওয়াজ দ্য কালার অফ ফ্লেমিং ব্রোঞ্জ অ্যান্‌ড ইট ওয়াজ ভেরি লার্জ। দ্য স্কাই অ্যারাউন্ড ইট ওয়াজ ব্লেজিং ব্লু। দ্য জাংগল বার্নড উইথ সানলাইট। দ্য চিলরেন, রিলিজড ফ্রম দেয়ার স্পেল রাশড আউট, ইয়েলিং, ইনটু দ্য সামারটাইম।

নাও ডোন্‌ট ইউ গো টু ফার, দ্য টিচার কলড্ আফটার দেম। ইউ’ভ ওনলি অ্যান আওয়ার, ইউ নো।

দ্য চিলরেন ওয়্যার রানিং অ্যান্‌ড টার্নিং আপ দেয়ার ফেসেজ টু দ্য স্কাই টু ফিল দ্য ওয়ার্ম সান অন দেয়ার চিকস্। দে টুক অফ দেয়ার জ্যাকেটস অ্যান্‌ড লেট দ্য সান ওয়ার্ম দেয়ার আর্মস।

ওহ, ইট’স বেটার দ্যান ল্যাম্‌পলাইটস, ইজন’ট ইট?

মাচ, মাচ বেটার।

দে স্টপড রানিং অ্যান্ড স্টুড ইন দ্য গ্রেট জাংগল দ্যাট কভারড ভেনাস। দ্য জাংগল গ্রিউ অ্যান্‌ড নেভার স্টপড গ্রোয়িং। দ্য জাংগল হ্যাড স্পেন্‌ট ইয়ারস্ উইদাউট দ্য সান। ইট ওয়াজ্ দ্য কালার অফ রাবার, অ্যাশ অ্যান্‌ড ইংক।

দ্য চিলরেন লে আউট লাফিং অন দ্য জাংগল ম্যাট্রেস। দে র‍্যান অ্যামং দ্য ট্রিজ। দে স্লিপড অ্যান্‌ড ফেল। দে পুশড ইচ আদার অ্যান্‌ড প্লেড হাইড অ্যান্‌ড সিক। মোস্ট অফ অল দে স্কুইন্‌টেড অ্যাট দ্য সান আনটিল টিয়ারস্ র‍্যান ডাউন দেয়ার ফেসেজ। দে ব্রিদড় দ্য ফ্রেশ এয়ার অ্যান্ড লিসেন্‌ড টু দ্য সাইলেন্‌স হুইচ হেল্ড দেম ইন আ ব্লেসড সি অফ নো সাউন্‌ড। দে লুকড অ্যাট এভ্রিথিং অ্যান্ড স্যাভরড এভ্রিথিং। দেন, ওয়াইল্ডলি, লাইক অ্যানিমালস্ এস্কেপড ফ্রম দেয়ার কেভস, দে র‍্যান অ্যান্ড র‍্যান, শাওটিং, ইন সার্কেলস্। দে র‍্যান ফর অ্যান আওয়ার অ্যান্ড ডিড নট স্টপ রানিং।

অ্যান্‌ড দেন —

ইন দ্য মিডস্ট অফ দেয়ার রানিং, ওয়ান অফ দ্য গার্লস ওয়েইলড এভ্রিওয়ান স্টপড।

দ্য গার্ল, স্ট্যান্ডিং ইন দি ওপেন, হেল্ড আউট হার হ্যান্‌ড। ওহ, লুক, লুক। শি সেড ট্রেম্লিং।

দ্য চিলরেন গ্যাদারড্ স্লোলি টু লুক অ্যাট হার ওপেনড পাম।

ইন দ্য সেন্টার অফ ইট ওয়াজ্ আ সিংগল লার্জ রেইনড্রপ।

দ্য গার্ল বিগ্যান টু ক্রাই লুকিং অ্যাট ইট।

দ্য চিলরে্ন গ্লান্‌সড্ কুইকলি অ্যাট দ্য স্কাই।

আ ফিউ কোল্ড ড্রপস ফেল অন দেয়ার নোজেস অ্যান্ড দেয়ার চিকস অ্যান্ড দেয়ার মাউথস। দ্য সান ফেডেড বিহাইন্‌ড আ ক্লাউড অফ মিস্ট। আ কুল উইন্ড ব্লিউ অ্যারাউন্ড দেম। দে টার্নড অ্যান্ড স্লোলি ওয়াকড টুওয়ার্ডস দেয়ার আন্ডারগ্রাউন্ড হাউজেস। দেয়ার স্মাইলস হ্যাড ভ্যানিশড্।

আ বুম অফ থান্ডার স্টার্টেলড্ দেম।

দে টাম্‌বলড্ আপন ইচ আদার অ্যান্ড র‍্যান।

ওহ, ওহ।

লাইটিং স্ট্রাক অল অ্যারাউন্‌ড দেম। দ্য স্কাই ডার্কেনড ইন্‌টু মিডনাইট ইন আ ফ্ল্যাশ।

দ্য চিলরেন স্টুড অ্যাট দ্য ডোরওয়ে টু দি আন্ডারগ্রাউন্‌ড হাউজেস আনটিল ইট ওয়াজ রেইনিং হার্ড। দেন দে ক্লোজড্ দ্য ডোরস্ অ্যান্ড হার্ড দ্য জাইগ্যান্টিক সাউন্‌ড অফ দ্য রেইন ফলিং এভ্রিহোয়্যার।

উইল ইট বি সেভেন মোর ইয়ারস্ বিফোর দ্য সান কামস আউট অ্যাগেইন?

ইয়েস।

উইথ পেল ফেসেস দে লুকড আউট অফ দ্য উইন্‌ডো অ্যাট দ্য ওয়ার্ল্ড দ্যাট ওয়াজ রেইনিং নাও, রেইনিং অ্যান্‌ড রেইনিং স্টেডিলি।।

All Summer in a Day এর বঙ্গানুবাদ

সাত বছর ধরে বৃষ্টি হচ্ছিল। হাজারের পরে হাজার দিন এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রাপ্ত বৃষ্টিতে ভরে গিয়েছিল। দিনগুলি জলের তোড় আর অবিশ্রাম বৃষ্টিপাতে ভরে গিয়েছিল। প্রচন্ড ঝড়বৃষ্টির কারণে দ্বীপগুলিতে বিপুল জোয়ারের প্লাবণ এসেছিল। হাজার হাজার জঙ্গল বৃষ্টিতে বিধ্বস্ত হয়ে গিয়েছিল, হাজারবার গজিয়েছিল আবার বিধ্বস্ত হওয়ার জন্য। শুক্রগ্রহে চিরকাল এরকমই ছিল জীবন। এখানেই অবস্থিত সেইসব পুরুষ ও নারীদের শিশুদের স্কুল যারা রকেটে চড়ে পৃথিবী থেকে এসেছিল। তারা এই বৃষ্টিময় জগতে এক সভ্যতা স্থাপন করেছিল।

প্রস্তুত?

প্রস্তুত।

এখন?

একটু পরেই।

আজকেই ঘটবে?

দ্যাখো, দ্যাখো, নিজেই দ্যাখো।

স্কুলঘরে শিশুরা অনর্গল বকবক করতে থাকে আর পরস্পরের গায়ে ঘেঁসাঘেসি করে রাশি রাশি গোলাপের মতো। তারা জানালা দিয়ে বাইরে তাকায় লুকোনো সূর্যকে দেখতে।

বৃষ্টি পড়তে থাকে।

থামছে, থামছে।

শিশুরা সবাই নয় বছর বয়সি। শেষবার যখন সূর্য উঠেছিল সাত বছর আগে তারা সবাই খুব ছোটো ছিল। তারা মনে করতে পারে না সেই সূর্যকে যা মাত্র এক ঘন্টার জন্য আবির্ভূত হয়েছিল আর তার মুখ দেখিয়েছিল স্তম্ভিত দুনিয়ার কাছে।

কাল সারাদিন তারা ক্লাসে পড়াশোনা করেছে সূর্যকে নিয়ে। তারা জেনেছে কেমন লেবুর মতো দেখতে সেটা আর কত গরম। সেটিকে নিয়ে তারা ছোটোগল্প, প্রবন্ধ বা কবিতা লিখেছে।

আমার মনে হয় সূর্য একটি ফুল

যা শুধু এক ঘন্টার জন্য ফোটে।

সেটি ছিল গতকাল। আজ, এই মুহূর্তে, বৃষ্টি ঢিমে হয়ে আসছিল। শিশুরা বিরাট চওড়া জানালাগুলোতে জড়ো হল।

আমাদের শিক্ষিকা কোথায়?

উনি চলে আসবেন।

ওঁকে তাড়াতাড়ি আসতে হবে নয়তো উনি এটি দেখতে পাবেন না।

বৃষ্টি আরও ঢিমে হল।

শিশুরা উদগ্রীব ছিল সূর্য দেখার জন্য। তারা তাদের জীবনভর শুক্র গ্রহেই আছে। তাদের মাত্র দুবছর বয়স ছিল যখন সূর্য শেষবার উঠেছিল। সেই থেকে দীর্ঘ সময়ের ব্যবধানে তারা ভুলে গেছে এটার রং আর তাপ সত্যিসত্যিই কেমন ছিল। ভূগর্ভস্থ শহরের প্রতিধ্বনিময় সুড়ঙ্গে তারা খেলাধুলো করেছে আর গ্রীষ্ম ও সূর্যের গান গেয়েছে।

বৃষ্টি থেমে গেল।

মনে হল যেন একটি প্রচন্ড ঝড় বাক্শক্তি হারিয়ে ফেলেছে। কোনো গতি বা কম্পন ছিল না প্রশান্তি ছাড়া। জগৎ নিশ্চলতায় ডুবে গেল। নৈঃশব্দ এতই বিপুল ছিল যে মনে হবে যেন কানগুলো বুজিয়ে দেওয়া হয়েছে। শিশুরা তাদের কানে হাত চাপা দিল। তারা সরে দাঁড়াল। দরজাটি মসৃণভাবে পিছনে সরে গেল। নিস্তব্ধ অপেক্ষমান জগতের গন্ধটি এল তাদের কাছে।

সূর্য বেরিয়ে এল।

সেটির রং ছিল জ্বলন্ত ব্রোঞ্জের আর সেটি ছিল খুব বড়ো। এর চারপাশের আকাশটি ছিল গনগনে নীল। জঙ্গলটি সূর্যের আলোয় জ্বলছিল। শিশুরা, তাদের সম্মোহিত অবস্থা থেকে মুক্ত, হুড়মুড় করে বাইরে বেরল, চিৎকার করতে করতে, গরমকালের মধ্যে।

দেখো, তোমরা বেশি দূরে যেও না, তাদের শিক্ষিকা পিছন থেকে বললেন। তোমাদের হাতে শুধু এক ঘন্টা সময় আছে, তোমরা জানো।

শিশুরা ছুটোছুটি করছিল আর তাদের মুখগুলো উপরে তুলছিল আকাশের দিকে উষ্ণ সূর্যকে তাদের গালে অনুভব করার জন্য। তারা তাদের জ্যাকেটগুলি খুলে ফেলল আর তাদের হাতগুলিকে উষ্ণ করতে দিল সূর্যকে।

আহ্, ল্যাম্পের আলোর থেকে এটা অনেক ভালো, তাই না?

অনেক, অনেক ভালো।

তারা ছোটাছুটি থামাল আর বিরাট জঙ্গলের মধ্যে দাঁড়াল যা শুক্রগ্রহকে ছেয়ে আছে। জঙ্গলটি বেড়ে উঠেছে আর বেড়ে ওঠা থামায়নি কখনও। জঙ্গলটি সূর্য ছাড়াই বছরের পর বছর কাটিয়েছে। সেটি ছিল রবার, ছাই আর কালির রঙের।

শিশুরা জঙ্গল-তোশকের ওপর হাসতে হাসতে এলিয়ে পড়ল। তারা গাছগুলোর মধ্যে ছুটোছুটি করতে থাকল। পা পিছলে আছাড় খেল তারা। তারা একে অন্যকে ঠ্যালাঠেলি করল আর লুকোচুরি খেলল। সবথেকে বেশি তারা সূর্যের দিকে আড়চোখে তাকিয়ে থাকল যতক্ষণ না চোখের জল তাদের মুখ বেয়ে নামে। তারা টাটকা বাতাস নিঃশ্বাস নিল আর শুনল নিস্তব্ধতা যা তাদের শব্দহীনতার এক মনোরম সমুদ্রে ধরে রাখল। তারা সবকিছুর দিকে তাকাল আর সবকিছুকে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করল। তারপর উন্মত্তভাবে, গুহা থেকে পালানো প্রাণীদের মতো, তারা বৃত্তাকারে ছুটতেই থাকল, চিৎকার। করতে করতে। তারা এক ঘন্টা ধরে ছুটল আর ছোটা থামাল না।

আর তারপর —

তাদের ছুটোছুটির মধ্যে, মেয়েদের মধ্যে একজন আর্তনাদ করে উঠল। সবাই থেমে গেল।

মেয়েটি, খোলা জায়গায় দাঁড়িয়ে, তার হাতটা বাড়িয়ে দিল।

আহ্, দ্যাখো, দ্যাখো। সে বলল কাঁপতে কাঁপতে।

শিশুরা আস্তে আস্তে জড়ো হল তার খোলা তালু দেখতে।

সেটির মাঝখানে ছিল একটি বড়ো বৃষ্টির ফোঁটা।

মেয়েটি কাঁদতে শুরু করল, ওটির দিকে তাকিয়ে।

শিশুরা চকিতভাবে আকাশের দিকে তাকাল।

কয়েকটি ঠান্ডা ফোঁটা পড়ল তাদের নাকে আর তাদের গালে আর তাদের মুখে। অস্পষ্টতার মেঘের আড়ালে সূর্যটি আস্তে আস্তে মিলিয়ে গেল। একটা শীতল বাতাস তাদের চারধারে বইতে থাকল। তারা ঘুরে দাঁড়াল আর আস্তে আস্তে হেঁটে গেল তাদের ভূগর্ভস্থ বাড়িগুলির দিকে। তাদের হাসি মিলিয়ে গিয়েছিল।

বজ্রের একটি গম্ভীর শব্দ তাদের চমকে দিল।

তারা একে অন্যের ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়ল আর দৌড় লাগাল।

ওঃ, ওঃ।

তাদের চারপাশে সবখানে বিদ্যুৎ চমকাচ্ছিল। আকাশটি এক নিমেষে অন্ধকার হয়ে মধ্য পরিণত হল।

শিশুরা ভূগর্ভস্থ বাড়িগুলির প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে থাকল যতক্ষণ না খুব জোরে বৃষ্টি পড়ছে। তারপর তারা দরজাগুলি বন্ধ করে দিল আর সর্বত্র বৃষ্টি পড়ার রাক্ষুসে আওয়াজ শুনতে পেল।

আবার সূর্য ওঠার আগে আরও সাতটা বছর কেটে যাবে কি?

হ্যাঁ।

বিবর্ণ মুখে তারা জানালা দিয়ে বাইরে তাকাল সেই জগৎটির দিকে যেখানে বৃষ্টি পড়ছে এখন, বৃষ্টি পড়ছে আর বৃষ্টি পড়ছে অবিরাম।

All Summer in a Day হল Ray Bradbury লিখিত একটি বিজ্ঞান কল্পকাহিনী, যা ভেনাস গ্রহের উপর বসবাসকারী শিশুদের একটি গোষ্ঠীর গল্প বলা হয়। এই গ্রহে সাত বছরে একবার মাত্র এক ঘন্টার জন্য সূর্য দেখা যায়। শিশুরা সেই দিনের অপেক্ষায় থাকে, কিন্তু তাদের মধ্যে একজন, Margot, সূর্যের আলোর গরমতা ও উজ্জ্বলতা মনে রাখে, কারণ সে পৃথিবী থেকে এসেছে। অন্যান্য শিশুরা তাকে বিশ্বাস করে না, কিন্তু সে তাদের কাছে সূর্যের সৌন্দর্য বর্ণনা করে। শেষ পর্যন্ত, সূর্য উদয় হয়, এবং শিশুরা এক ঘন্টার জন্য তার আলো উপভোগ করে।

এই গল্পটি মানুষের স্বপ্ন, আশা এবং স্মৃতির শক্তি সম্পর্কে কথা বলে। এটি আমাদের শেখায় যে আমাদের স্বপ্নগুলি অনুসরণ করা এবং অতীতের সুখী মুহূর্তগুলি মনে রাখা কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

All Summer in a Day একটি সুন্দর এবং চিন্তাভাবনা করার গল্প যা পাঠকদের হৃদয় স্পর্শ করে।

আমি আশা করি এই পরামর্শটি আপনার কাজে আসবে। আর কিছু জানতে চাইলে, দয়া করে জানান।

Rate this post


Join WhatsApp Channel For Free Study Meterial Join Now
Join Telegram Channel Free Study Meterial Join Now

মন্তব্য করুন