অষ্টম শ্রেণি – বাংলা – অদ্ভুত আতিথেয়তা – অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

অষ্টম শ্রেণির বাংলা বিষয়ের অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলি পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এইভাবে অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলি যদি তোমরা প্রস্তুত করে না যাও তাহলে পরীক্ষায় অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলোর উত্তর দিতে পারবে না। তাই অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলি ভালো করে মুখস্ত করে গেলে তোমরা পরীক্ষায় খুব ভালো ফলাফল পাবে।

Table of Contents

অদ্ভুত আতিথেয়তা” গল্পটি আমাদের সত্য, ন্যায় ও অতিথিপরায়ণতার শিক্ষা দেয়। গল্পটি অষ্টম শ্রেণির বাংলা পাঠ্যসূচীর অন্তর্ভুক্ত এবং ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচিত একটি জনপ্রিয় গল্প। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচিত “অদ্ভুত আতিথেয়তা” গল্পটি এক অদ্ভুত ব্রাহ্মণ ও তার আতিথেয়তার কাহিনী। একদিন ব্রাহ্মণ বাড়িতে এক অপরিচিত যুবক এসে উপস্থিত হয়। ব্রাহ্মণ তাকে আন্তরিকতার সাথে আপ্যায়ন করে। যুবকটি ব্রাহ্মণের আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়ে ব্রাহ্মণকে ধনী করে দিতে চায়। কিন্তু ব্রাহ্মণ অর্থের প্রতি আগ্রহী নন। তিনি যুবককে বলেন, সত্য ও ন্যায়ের পথে হাঁটাই আসল ধন। যুবক ব্রাহ্মণের কথা শুনে উপলব্ধি করে এবং ন্যায়ের পথে জীবনযাপন করার সিদ্ধান্ত নেয়।

অদ্ভুত আতিথেয়তা – অষ্টম শ্রেণি – বাংলা – অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর কোন্ কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন?

উত্তর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন।

তাঁর রচিত দুটি গ্রন্থের নাম লেখো।

তাঁর রচিত দুটি গ্রন্থের নাম হল – ‘কথামালা’ ও ‘বোধোদয়’।

অদ্ভুত আতিথেয়তা গল্পে কোন্ কোন্ সেনাপতির প্রসঙ্গ রয়েছে?

অদ্ভুত আতিথেয়তা গল্পে আরব সেনাপতি ও মুর সেনাপতির প্রসঙ্গ রয়েছে।

তিনি, এক আরবসেনাপতির পটমণ্ডপদ্বারে উপস্থিত হইয়া, আশ্রয় প্রার্থনা করিলেন।’ – উদ্ধৃতাংশে ‘তিনি’ বলতে কার কথা বোঝানো হয়েছে?

উদ্ধৃতাংশে ‘তিনি’ বলতে মুর সেনাপতিকে বোঝানো হয়েছে।

উভয় সেনাপতির কথোপকথন হইতে লাগিল। – ‘উভয় সেনাপতি’ বলতে এখানে কাদের কথা বলা হয়েছে?

প্রশ্নে উদ্ধৃত অংশে ‘উভয় সেনাপতি’ বলতে আরব সেনাপতি ও মুর সেনাপতির কথা বোঝানো হয়েছে।

তাহা হইলে আমাদের উভয়ের প্রাণরক্ষার সম্ভাবনা। – প্রাণরক্ষার কোন্ উপায় বক্তা এক্ষেত্রে বলেছেন?

বক্তা বলেছেন যে মুর সেনাপতির ঘোড়াটি যদি তাকে নিয়ে দ্রুতবেগে গমন করতে পারে, তবেই তাদের উভয়ের প্রাণরক্ষার সম্ভাবনা আছে।

আপনি সত্বর প্রস্থান করুন। – বক্তা কেন উদ্দিষ্ট ব্যক্তিকে ‘সত্বর প্রস্থান’ করার নির্দেশ দিলেন?

সূর্যোদয়ের পরেই পিতৃহন্তা মুর সেনাপতিকে নিধন করতে সচেষ্ট হবেন আরব সেনাপতি, তাই প্রশ্নোক্ত অংশের বক্তা আরব সেনাপতি মুর সেনাপতিকে সত্বর প্রস্থান করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

একদা (জার্মান/অসুর/আরব) – দের সঙ্গে মুরদের যুদ্ধ হয়েছিল।

আরব।

তিনি বিপক্ষের শিবির সন্নিবেশস্থাপনে উপস্থিত হইলেন। – বিপক্ষ শিবিরে প্রবেশ কব লে – (আতিথেয়তালাভের সম্ভাবনা থাকে/আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে/নিজ শিবিরে প্রত্যাবর্তনের ঠিক পথ জানার সম্ভাবনা থাকে/নিজ দলের সৈন্যদের সঙ্গে দেখা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।)

আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

মুর সেনাপতি আরব সেনাপতির (বন্ধু/আত্মীয়/শত্রু) ছিলেন।

শত্রু।

মুর সেনাপতি (খাদ্য/জল/আশ্রয়) প্রার্থনা করেছিল।

আশ্রয়।

আতিথেয়তা বিষয়ে জগতে (আরব/মুর/ভারতীয়)-রা অতুলনীয়।

আরবরা।

কিন্তু তাঁহার _ জন্মিয়াছিল।

দিকভ্রম।

সে-সময়ে তিনি এরূপ ক্লান্ত হইয়াছিলেন যে, আর কোনোক্রমেই কিন্তু তাঁহার _ গমন করিতে পারেন না।

অশ্বপৃষ্ঠে।

_ বিষয়ে পৃথিবীতে কোনো জাতিই আরবদিগের তুল্য নহে।

আতিথেয়তা।

সাদর সম্ভাষণ করিয়া মুর সেনাপতিকে _ আরোহণ করাইলেন।

অশ্বপৃষ্ঠে।

আমাদের জাতীয় ধর্ম এই যে প্রাণান্ত ও সর্বস্বান্ত হইলেও, অতিথির _ করি না।

অনিষ্টচিন্তা।

বিদ্যাসাগরের লেখা একটি মৌলিক গ্রন্থের নাম লেখো।

বিদ্যাসাগরের লেখা একটি মৌলিক গ্রন্থ ‘প্রভাবতী সম্ভাষণ’।

অদ্ভুত আতিথেয়তা গদ্যে কোন্ কোন্ জাতির বৈরিতার কথা বলা হয়েছে?

অদ্ভুত আতিথেয়তা গদ্যে আরব ও মুর জাতির বৈরিতার কথা বলা হয়েছে।

মুর সেনাপতি কার কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করেছিলেন?

মুর সেনাপতি আরব সেনাপতির কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করেছিলেন।

আরব সেনাপতির পিতাকে হত্যার আদেশ কে দিয়েছিলেন?

আরব সেনাপতির পিতাকে হত্যার আদেশ দিয়েছিলেন মুর সেনাপতি।

তদবিষয়ে যথোপযুক্ত আনুকূল্য করিব। – বক্তা কোন্ বিষয়ে, কেন যথোপযুক্ত আনুকূল্য করার প্রতিশ্রুতি দিলেন?

বক্তা অর্থাৎ আরবসেনাপতি মুরসেনাপতিকে তার নিজ শিবিরে প্রবেশের বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিলেন কারণ, মুরসেনাপতির অশ্ব ক্লান্ত ও হতবীর্য হয়েছে, তাই আরব সেনাপতি তেজস্বী ও সুসজ্জিত অশ্ব ব্যবস্থা করে দেবেন।

বিদ্যাসাগরের প্রকৃত নাম কী? তিনি কেন ‘বিদ্যাসাগর’ উপাধি পান?

বিদ্যাসাগরের প্রকৃত নাম ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়।
কাব্য, অলংকার, জ্যোতিষ, ন্যায়শাস্ত্রে অসাধারণ পাণ্ডিত্যের জন্য তিনি ‘বিদ্যাসাগর’ উপাধি লাভ করেন।

অতিথির প্রতি আরবজাতি কেমন আচরণ করে?

কেউ অতিথিভাবে আরবদের গৃহে উপস্থিত হলে, তারা সাধ্যানুসারে অতিথির পরিচর্যা করেন; সেই ব্যক্তি শত্রু হলেও সামান্য অনাদর বা বিদ্বেষ প্রদর্শন করেন না।

আরব ও মুর সেনাপতি কী বিষয়ে কথোপকথন করছিলেন?

আরব সেনাপতি ও মুর সেনাপতি একাসনে বসে নিজেদের এবং তাদের পূর্বপুরুষদের সাহস, পরাক্রম, সংগ্রামকৌশল প্রভৃতি বিষয়ে কথোপকথন করছিলেন।

আমাদের জাতীয় ধর্ম এই। – বক্তা কে? জাতীয় ধর্মটি কী?

প্রশ্নে প্রদত্ত অংশের বক্তা হলেন আরব সেনাপতি।
প্রাণান্ত ও সর্বস্বান্ত হলেও আরবরা অতিথির কোনো অনিষ্ট চিন্তা করে না-এটাই আরবদের জাতীয় ধর্ম।

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচিত “অদ্ভুত আতিথেয়তা” গল্পটিতে আমরা দেখতে পাই রামকান্ত নামক এক ধনী ব্যক্তির অসাধারণ আতিথেয়তা। রামকান্ত ছিলেন একজন সৎ, দানশীল ও অহংকারহীন ব্যক্তি। তিনি যেকোনো অতিথিকে সমানভাবে গ্রহণ করতেন এবং তাদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদান করতেন।

একদিন রামকান্তের বাড়িতে এক অদ্ভুত ভিখারী আসেন। ভিখারীটি ছিলেন অত্যন্ত ক্ষুধার্ত ও অসুস্থ। রামকান্ত তাকে নিজের পরিবারের মতো করে আপ্যায়ন করেন এবং তার যত্ন নেন। ভিখারীটি চলে যাওয়ার সময় রামকান্তকে একটি রহস্যময় উপহার দেন।

কিছুদিন পর রামকান্তের সমস্ত সম্পত্তি নষ্ট হয় এবং তিনি নিঃস্ব হয়ে পড়েন। হতাশার তীব্রতায় তিনি আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেন। ঠিক তখনই সেই ভিখারী রামকান্তের সামনে উপস্থিত হন এবং তাকে রহস্যময় উপহারটি ফেরত দেন। উপহারটি ছিল একটি মূল্যবান পাথর যা রামকান্তকে তার সমস্ত সম্পত্তি ফিরে পেতে সাহায্য করে।

এই গল্পের মাধ্যমে লেখক আমাদেরকে শিখিয়েছেন যে, সত্য, দানশীলতা ও পরোপকারের গুণ অবশ্যই ফলপ্রসূ হয়। রামকান্তের অসাধারণ আতিথেয়তা তাকে বিপদ থেকে উদ্ধার করে এবং তার জীবনকে নতুন করে গড়ে তোলে। গল্পটি আমাদেরকে সকলের প্রতি সহানুভূতিশীল ও সহায়ক হওয়ার শিক্ষা দেয়।

Rate this post


Join WhatsApp Channel For Free Study Meterial Join Now
Join Telegram Channel Free Study Meterial Join Now

মন্তব্য করুন