বারখান বালিয়াড়ির বৈশিষ্ট্যগুলি লেখো।

আজকে আমরা আমাদের আর্টিকেলে দেখবো যে বারখান বালিয়াড়ির বৈশিষ্ট্য এই প্রশ্ন দশম শ্রেণীর পরীক্ষার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ, বারখান বালিয়াড়ির বৈশিষ্ট্য, প্রশ্নটি আপনি পরীক্ষার জন্য তৈরী করে গেলে আপনি লিখে আস্তে পারবেন।

বার্খান, যার অর্থ তুর্কি ভাষায় “বালির পাহাড়”, মরুভূমিতে বায়ুপ্রবাহের গতিপথে তৈরি অর্ধচন্দ্রাকৃতি বালিয়াড়ি। বার্খানের সামনের দিক উত্তল এবং পিছনের দিক অবতল ঢালবিশিষ্ট, দুটি বাহুর দু-প্রান্তে শিং-এর মতো শিরা থাকে। সাধারণত ১৫-২০ মিটার উঁচু এবং ৪০-৮০ মিটার বিস্তৃত, বার্খানগুলি একাধিক সংখ্যক পাশাপাশি গঠিত হলে অ্যাকলে বালিয়াড়ি তৈরি করে। বিভিন্ন দিক থেকে বায়ুপ্রবাহের ফলে বার্খানগুলি তির্যক রোর্ডস বালিয়াড়িতে পরিণত হয়। পৃথিবীর সকল উষ্ণ মরুভূমিতে বার্খান দেখা যায়।

বারখান বালিয়াড়ির বৈশিষ্ট্যগুলি লেখো।

বায়ুর গতিপথে আড়াআড়িভাবে গড়ে ওঠা অর্ধচন্দ্রাকৃতি, বালিয়াড়িকে বারখান বলা হয়। বারখানের কতকগুলি বৈশিষ্ট্য আছে, যেমন —

  • বারখানের বায়ুমুখী ঢাল খাড়া হয় না, উত্তল আকৃতির হয়। কিন্তু বিপরীত দিকের ঢাল খুব খাড়া এবং অবতল আকৃতির হয়।
  • বারখানের দুই পাশে দুটি শিং-এর মতো শিরা আধখানা চাঁদের দুই প্রান্তের মতো বিস্তৃত হয়।
  • বারখানের উচ্চতা সাধারণত 15 থেকে 30 মিটার পর্যন্ত হয় এবং এক-একটি বারখান প্রায় 5 থেকে 200 মিটার পর্যন্ত স্থান জুড়ে অবস্থান করে।
  • সমতল জায়গায় একসঙ্গে অনেকগুলি বারখান পরপর গড়ে উঠতে পারে, তবে এগুলি সাধারণত অস্থায়ী বা চলমান বালিয়াড়ি হয়।

আরও পড়ুন – ক্রেভাস এবং এবং বার্গস্রুন্ড পর্বতারোহীর কাছে বিপজ্জনক কেন?

এই আর্টিকেলে আমরা বারখান বালিয়াড়ির বৈশিষ্ট্যগুলি আলোচনা করেছি, যা দশম শ্রেণীর পরীক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

বারখান বালিয়াড়ি হলো এক ধরণের অর্ধচন্দ্রাকৃতি বালিয়াড়ি যা মরুভূমিতে দেখা যায়। এই বালিয়াড়িগুলি তাদের অনন্য বৈশিষ্ট্যগুলির জন্য পরিচিত, যা তাদের অন্যান্য ধরণের বালিয়াড়ি থেকে আলাদা করে তোলে।

Rate this post


Join WhatsApp Channel For Free Study Meterial Join Now
Join Telegram Channel Free Study Meterial Join Now

মন্তব্য করুন