অষ্টম শ্রেণি – বাংলা – অদ্ভুত আতিথেয়তা – ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

অষ্টম শ্রেণির বাংলা বিষয়ের অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলি পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এইভাবে অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলি যদি তোমরা প্রস্তুত করে না যাও তাহলে পরীক্ষায় অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলোর উত্তর দিতে পারবে না। তাই অদ্ভুত আতিথেয়তা অধ্যায়ের ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর গুলি ভালো করে মুখস্ত করে গেলে তোমরা পরীক্ষায় খুব ভালো ফলাফল পাবে।

Table of Contents

এক যুদ্ধে পরাজিত মুর সেনাপতি, ক্ষুধা-তৃষ্ণায় কাতর ও অবসন্ন অবস্থায়, বিপক্ষ আরব শিবিরে আশ্রয় চেয়ে এসেছিলেন। শত্রু হলেও, আরব সেনাপতি তাকে কেবল আশ্রয়ই দেননি, বরং যথোচিত পরিচর্যার মাধ্যমে তার ক্ষুধা-তৃষ্ণা নিবারণের ব্যবস্থাও করেন।

পরিচর্যার সময়, মুর সেনাপতি ও আরব সেনাপতির মধ্যে কথোপকথন হয়। তখন মুর সেনাপতি স্বীকার করেন যে, তিনিই আরব সেনাপতির পিতার হত্যাকারী। এই সত্য জেনেও, আরব সেনাপতি তার প্রতি আচরণে কোনো পরিবর্তন আনেননি। বরং, তার আতিথেয়তা আরও বৃদ্ধি পায়।

চরমতম শত্রুকে নিজের শিবিরে অসহায় অবস্থায় পেয়েও, আরব সেনাপতি তাকে কোনো ক্ষতি না করে নিরাপদে প্রত্যাবর্তনের ব্যবস্থা করে দেন।

এই ঘটনাটি আরবদের অসাধারণ আতিথেয়তার একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। শত্রুকেও যখন এমন আন্তরিক আতিথেয়তা প্রদান করা হয়, তখন বলা যায়, পৃথিবীতে আতিথেয়তার ব্যাপারে আরবদের তুল্য অন্য কোন জাতি নেই।

এই গল্পটি আমাদের শেখায় যে, আতিথেয়তা কেবল খাবার-দাবার পরিবেশন করাই নয়, বরং অতিথির প্রতি সম্মান, সহানুভূতি ও উদারতার প্রকাশ। আরবদের আতিথেয়তা এই সকল গুণাবলীর অসাধারণ নিদর্শন।

অদ্ভুত আতিথেয়তা – অষ্টম শ্রেণি – বাংলা – ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

তাহার দিকভ্রম জন্মিয়াছিল। – এখানে কার কথা বলা হয়েছে? দিকভ্রম হওয়ার পরিণতি কী হল?

প্রশ্নে উদ্ধৃত অংশে মুর সেনাপতির কথা বলা হয়েছে।

দিকভ্রম হওয়ার ফলে ক্ষুধা-তৃষ্ণায় ক্লান্ত, অবসন্ন মুর সেনাপতি বিপক্ষের শিবির অর্থাৎ আরব শিবিরের কাছে পৌঁছোন। সেই সময়ে মুর সেনাপতি এতটাই অবসন্ন, ক্লান্ত ছিলেন যে আবার ঘোড়ায় আরোহণ করে সঠিক পথের সন্ধান করা তার পক্ষে অসম্ভব। তাই তিনি আরব সেনাপতির কাছেই আতিথ্য প্রার্থনা করেছিলেন।

আতিথেয়তা বিষয়ে পৃথিবীতে কোনও জাতিই আরবদিগের তুল্য নহে। – এই বক্তব্যের সমর্থন গল্পে কীভাবে খুঁজে পেলে?

ক্ষুধা-তৃষ্ণায় কাতর, অবসন্ন, দিকভ্রষ্ট মুর সেনাপতি যখন বিপক্ষ আরব শিবিরে আশ্রয় প্রার্থনা করলেন, তখন আরব সেনাপতি তাঁকে শুধু আশ্রয়ই প্রদান করলেন, না, যথোচিত পরিচর্যার মধ্য দিয়ে তাঁর ক্ষুধা-তৃষ্ণা দূর করার ব্যবস্থাও করলেন। এরপর মুর সেনাপতি ও আরব সেনাপতির বন্ধুভাবে নানা কথাবার্তার মধ্য দিয়ে আরব সেনাপতি অবহিত হন যে, মুর সেনাপতিই তাঁর পিতার হত্যাকারী। কিন্তু তা জেনেও তিনি মুর সেনাপতির পরিচর্যার কোনো ত্রুটি করলেন না। চরমতম শত্রুকে অসহায় অবস্থায় নিজের সীমার মধ্যে পেয়েও কোনোরূপ ক্ষতিসাধন না করে নিরাপদে আপন শিবিরে প্রত্যাবর্তনের সুবন্দোবস্ত করে দেওয়ার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন আরব সেনাপতি। উক্ত গল্পটির মধ্য দিয়ে এভাবে আতিথেয়তা বিষয়ে পৃথিবীতে কোনো জাতিই আরবদের তুল্য নয়-এই বক্তব্যের সমর্থন পরিস্ফুট হয়।

সহসা আরবসেনাপতির মুখ বিবর্ণ হইয়া গেল। – আরব সেনাপতির মুখ হঠাৎ বিবর্ণ হয়ে ওঠার কারণ কী?

আরব সেনাপতি এবং মুর সেনাপতি একসঙ্গে বসে যখন কথোপকথনে নিমগ্ন ছিলেন, তখন দুই সেনাপতিই নিজ নিজ এবং নিজেদের পূর্বপুরুষদের বিজয়কাহিনি বা সংগ্রামের কাহিনি বর্ণনা করতে থাকেন। এই সময়ে কথোপকথন থেকে আরব সেনাপতি জানতে পারেন যে, মুর সেনাপতিই তার পিতৃহন্তা। এ কথা শুনেই আরব সেনাপতির মুখ বিবর্ণ হয়ে গেছে।

সন্দিহানচিত্তে শয়ন করিলেন। – এখানে কার মনের সন্দেহের কথা বলা হয়েছে? তাঁর মনের এমন সন্দেহের কারণ কী?

প্রশ্নে প্রদত্ত অংশে মুর সেনাপতির মনের সন্দেহের কথা বলা হয়েছে।

আরব সেনাপতি আর মুর সেনাপতি যখন নিজ নিজ বংশের পূর্বপুরুষের গৌরবের কথা বলছিলেন তখন হঠাৎ করেই আরব সেনাপতি সেখান থেকে উঠে পড়েন এবং পরে তিনি বলে পাঠান তিনি অসুস্থ, তবে মুর সেনাপতির আহার ও শয়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আরব সেনাপতির এমন আচরণ মুর সেনাপতির ভালো লাগেনি, তার মনে সন্দেহ হয়। কারণ তিনি বিপক্ষশিবিরে অবস্থান করছিলেন। যদি শত্রুপক্ষ তার কোনো ক্ষতি করে, তাই মুর সেনাপতি আরব সেনাপতির আচরণে সন্দেহ করেছিলেন।

তাঁহার অনুসরণ করিতেছিল – কে, কাকে অনুসরণ করছিলেন? তাঁর এই অনুসরণের কারণ কী?

অদ্ভুত আতিথেয়তা গল্পাংশে আরব সেনাপতি মুর সেনাপতির অনুসরণ করছিলেন।

আরব সেনাপতি জানতে পেরেছিলেন যে, মুর সেনাপতি তার পিতৃহন্তা। এই পিতৃহন্তাকে সংহার করার জন্যই তিনি তার অনুসরণ করেছিলেন।

কীরূপ পরিস্থিতিতে মুর সেনাপতি বিপক্ষশিবিরে আশ্রয় প্রার্থনা করেন?

একবার আরবজাতির সঙ্গে মুরদের সংগ্রাম হয়েছিল। আরব সেনা এক মুর সেনাপতিকে অনুসরণ করছিল। মুর সেনাপতি ঘোড়ায় চড়ে সেখান থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন এবং নিজের শিবিরের দিকে যাত্রা করেন। কিন্তু তিনি দিগ্‌ভ্রান্ত হয়ে পড়েন, দিক স্থির করতে না পেরে বিপক্ষীয় শত্রুশিবিরের সামনে এসে উপস্থিত হন। সেই সময়ে তিনি এতটাই ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন যে, ঘোড়ায় চড়ে অন্যত্র যাওয়ার মতো শক্তিও তার ছিল না। এমন অবস্থায় তিনি আরব সেনাপতির কাছে অর্থাৎ বিপক্ষশিবিরে এসে আশ্রয় প্রার্থনা করেন।

এই সময়ে, সহসা আরবসেনাপতির মুখ বিবর্ণ হইয়া গেল। – কোন্ সময়ের কথা বলা হয়েছে? মুখ বিবর্ণ হয়েছিল কেন?

আরব সেনাপতি ও মুর সেনাপতি একাসনে বসে কথোপকথন করছিলেন। তারা উভয়েই নিজ নিজ এবং নিজেদের পূর্বপুরুষদের বীরত্ব, সংগ্রামকৌশল প্রভৃতির পরিচয় দিচ্ছিলেন। সেই সময়েই হঠাৎ আরব সেনাপতির মুখ বিবর্ণ হয়ে যায়।

কথোপকথনের সময় মুর সেনাপতির কথা থেকে আরব সেনাপতি বুঝতে পারেন যে-মুর সেনাপতিই তার পিতৃহন্তা। এ কথা শুনেই আরব সেনাপতির মনে ক্রোধ তৈরি হয়, তিনি অপ্রসন্ন হন। এর ফলেই তার মুখ বিবর্ণ হয়ে যায়।

আমা অপেক্ষা আপনকার ঘোরতর বিপক্ষ আর নাই। – কে, কাকে, কখন, কেন এ কথা বলেছিল?

প্রশ্নোক্ত বক্তব্যটি জনৈক আরব সেনাপতির। তিনি উক্তিটি করেছেন জনৈক মুর সেনাপতিকে উদ্দেশ করে। বিদায় নেওয়ার সময় আরব সেনাপতি মুর সেনাপতিকে সাদর সম্ভাষণ করেন, তাকে অশ্বপৃষ্ঠে আরোহণ করান এবং তাকে শীঘ্র প্রস্থান করার নির্দেশ দিয়ে প্রশ্নোক্ত কথাটি বলেন।

উভয় সেনাপতি যখন কথোপকথন করছিলেন তখন মুর সেনাপতির কথায় আরব সেনাপতি জানতে পারেন যে মুর সেনাপতিই তার পিতৃহন্তা, তা ছাড়া সে বিপক্ষীয় তো বটেই। তাই আরব সেনাপতি প্রশ্নোক্ত কথাগুলি বলেছেন।

বারংবার এই শপথ ও প্রতিজ্ঞা করিয়াছি, – উদ্ধৃতাংশটি কার বক্তব্য? কখন, কী প্রতিজ্ঞা তিনি করেছেন?

প্রশ্নে উদ্বৃত অংশটির বক্তা হলেন আরব সেনাপতি।

আরব সেনাপতি ও মুর সেনাপতি যখন বন্ধুভাবে নানা বিষয়ে কথোপকথন করছিলেন, তখন মুর সেনাপতির একটি কথায় আরব সেনাপতি বুঝতে পারেন যে মুর সেনাপতিই তার পিতার হত্যাকারী। তখনই আরব সেনাপতি প্রতিজ্ঞা করেছিলেন।

আরব সেনাপতি শপথ ও প্রতিজ্ঞা করেছিলেন যে,সূর্যোদয় হলেই প্রাণপণে পিতৃহন্তার প্রাণবধসাধনে প্রবৃত্ত হবেন।

আরব সেনাপতি প্রতিজ্ঞাপূরণের জন্য কী করেছিলেন? তার পরিণাম কী হয়েছিল?

মুর সেনাপতি অশ্বারোহণে বিপক্ষশিবির ত্যাগ করার পরেই সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে আরব সেনাপতি অশ্বারোহণ করেন এবং মুর সেনাপতিকে অনুসরণ করেন তাকে বধ করার উদ্দেশ্যে।

সামান্য সময়ের মধ্যে তেজি অশ্বে আরোহণ করে মুর সেনাপতি নির্বিঘ্নে স্বপক্ষীয় শিবিরে প্রবেশ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। এর ফলে আরব সেনাপতি দ্রুতবেগে তাকে অনুসরণ করেও আয়ত্তের মধ্যে আনতে ব্যর্থ হন। ফলে মুর সেনাপতির প্রতি বৈরসাধন সংকল্প সফল হওয়ার সম্ভাবনা নেই বুঝতে পেরে আরব সেনাপতি নিজের শিবিরে ফিরে যান।

অষ্টম শ্রেণির বাংলা বিষয়ের “অদ্ভুত আতিথেয়তা” পাঠ্য থেকে ব্যাখ্যাভিত্তিক প্রশ্ন ও উত্তরগুলো পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে না পারলে পরীক্ষায় ভালো ফলাফল অর্জন করা কঠিন হতে পারে।তাই, পরীক্ষার পূর্বে এই প্রশ্নগুলো ভালো করে পড়ে ও মুখস্থ করে রাখা জরুরি। “অদ্ভুত আতিথেয়তা” গল্পটি আমাদের শেখায় যে, আতিথেয়তা কেবল খাবার পরিবেশন করাই নয়, বরং অতিথির প্রতি সম্মান, সহানুভূতি ও উদারতার প্রকাশ। আরবদের আতিথেয়তা এই সকল গুণাবলীর অসাধারণ নিদর্শন। গল্পের প্রধান চরিত্র, ঘটনা ও মূল বার্তা মনে রাখুন। গুরুত্বপূর্ণ শব্দ ও বাক্যগুলোকে চিহ্নিত করে রাখুন। বিভিন্ন ধরণের প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার অনুশীলন করুন। পরীক্ষার আগে একটি রিভিশন প্ল্যান তৈরি করুন এবং সেটি মেনে চলুন। এই তথ্যগুলো আপনাদের পরীক্ষায় ভালো করতে সাহায্য করবে বলে আশা করি।

Rate this post


Join WhatsApp Channel For Free Study Meterial Join Now
Join Telegram Channel Free Study Meterial Join Now

মন্তব্য করুন