ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও মানবজীবনের সম্পর্ক বিশ্লেষণ করো

আজকে আমরা আমাদের আর্টিকেলে দেখবো ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও মানবজীবনের সম্পর্ক বিশ্লেষণ করো এই প্রশ্ন দশম শ্রেণীর পরীক্ষার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ, এই প্রশ্নটি মাধ্যমিক ভূগোলের পঞ্চম অধ্যায় ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ অধ্যায়ের ভারতের ভূপ্রকৃতি বিভাগের প্রশ্ন। ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও মানবজীবনের সম্পর্ক বিশ্লেষণ আপনি পরীক্ষার জন্য তৈরী করে গেলে আপনি লিখে আস্তে পারবেন।

ভারতের বৈচিত্র্যময় প্রাকৃতিক পরিবেশ মানবজীবনের ওপর গভীরভাবে প্রভাব বিস্তার করেছে।

  • এই দেশের উত্তরে হিমালয় পর্বত অবস্থিত হওয়ায় উত্তরের শীতল সাইবেরীয় বাতাস যেমন ভারতে প্রবেশ করতে পারে না তেমনই দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু হিমালয়ে বাধাপ্রাপ্ত হয়ে প্রচুর বৃষ্টিপাত ঘটায়।
  • তিনদিকে সাগর দিয়ে ঘেরা উপদ্বীপ ও উত্তর এবং উত্তর-পশ্চিমের সুউচ্চ পর্বতশ্রেণি বহিঃশত্রুর আক্রমণ থেকে দেশকে রক্ষা করে।
  • বিভিন্ন গিরিপথ বাণিজ্যিক সমৃদ্ধির ক্ষেত্রেও সাহায্য করে।
  • ক্রান্তীয় জলবায়ুর জন্য এই দেশ কৃষিসমৃদ্ধ।
  • বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ক্রান্তীয় ফসল যেমন ধান, পাট, চা, কফি, মশলা প্রভৃতি এদেশের উর্বর মৃত্তিকায় উৎপন্ন হয়। প্রচুর বৃষ্টি, নদীগুলির অকৃপণ জলধারা, খনিজ সম্পদের প্রাচুর্য, বনজ সম্পদের ভাণ্ডার এদেশের উন্নতির সহায়ক হয়েছে।
  • এ ছাড়া, উর্বর সমতলভূমি যেমন কৃষির উন্নতি ঘটিয়েছে তেমনি নিবিড় ও সহজ যোগাযোগ (সড়ক, রেল) ব্যবস্থা গড়ে তুলতেও সাহায্য করেছে। এসব থেকে বলা যায় যে, ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ তার জনজীবনকে বিশেষভাবে প্রভাবিত করতে পেরেছে।

আরও পড়ুন – 1956 থেকে এখন পর্যন্ত ভারতের রাজ্য পুনর্বিন্যাস আলোচনা করো

ভারতের বৈচিত্র্যময় প্রাকৃতিক পরিবেশ দেশের মানুষের জীবনে গভীর প্রভাব ফেলেছে। উত্তরে হিমালয় পর্বতমালা দেশকে শীতল সাইবেরীয় বাতাস থেকে রক্ষা করে, যখন দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু এই পর্বতমালার বাধায় প্রচুর বৃষ্টিপাত ঘটায়। তিন দিকে সাগর দ্বারা বেষ্টিত উপদ্বীপ এবং উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমে উঁচু পর্বতমালা বহিঃশত্রুর আক্রমণ থেকে দেশকে রক্ষা করে। বিভিন্ন গিরিপথ বাণিজ্যিক সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ক্রান্তীয় জলবায়ু ভারতকে কৃষিজাত দ্রব্যে সমৃদ্ধ করে তোলে। ধান, পাট, চা, কফি, মশলা ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ ক্রান্তীয় ফসল উর্বর মাটিতে উৎপন্ন হয়। প্রচুর বৃষ্টিপাত, নদীগুলির অফুরন্ত জল, খনিজ সম্পদের প্রাচুর্য এবং বনজ সম্পদের ভাণ্ডার দেশের উন্নয়নে সহায়ক।

উর্বর সমতলভূমি কেবল কৃষিক্ষেত্রের উন্নতিই করেনি, বরং সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা (সড়ক, রেল) গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

উপসংহারে বলা যায়, ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ দেশের জনজীবনকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছে। ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য, জলবায়ু এবং প্রাকৃতিক সম্পদের সমন্বয় ভারতকে একটি অনন্য দেশে পরিণত করেছে যেখানে সমৃদ্ধ সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং জীববৈচিত্র্য বিকশিত হয়েছে।

Rate this post


Join WhatsApp Channel For Free Study Meterial Join Now
Join Telegram Channel Free Study Meterial Join Now

মন্তব্য করুন