উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি তুলনা করো

নমস্কার! আজকের আলোচনার বিষয় হল উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলির তুলনামূলক বিশ্লেষণ। দশম শ্রেণীর মাধ্যমিক ভূগোল পরীক্ষার জন্য এই বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি “ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ” অধ্যায়ের “ভারতের জলসম্পদ” বিভাগের অন্তর্গত।

এই আলোচনার মাধ্যমে আমরা উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর উৎস, প্রবাহপথ, বৈশিষ্ট্য, গুরুত্ব, এবং পার্থক্য সম্পর্কে জানতে পারব।

উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি তুলনা করো

উত্তর ভারতের নদনদীর সঙ্গে দক্ষিণ ভারতের নদনদীর সাদৃশ্যগুলি হল

  • উত্তর ভারতের অধিকাংশ নদী (যেমন — গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র প্রভৃতি) যেমন বঙ্গোপসাগরে পড়েছে, তেমনি দক্ষিণ ভারতেরও অধিকাংশ নদী (যেমন — কৃষ্ণা, কাবেরী, গোদাবরী প্রভৃতি)-ও বঙ্গোপসাগরে পড়েছে।
  • উত্তর ভারতের কিছু নদী (যেমন — সিন্ধু) আরব সাগরে মিশেছে তেমনই দক্ষিণ ভারতেরও কিছু সংখ্যক নদী (যেমন — নর্মদা, তাপ্তী) ও আরব সাগরে মিশেছে।
  • উত্তর ভারতের নদনদীগুলির (যেমন — গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র) যেমন বদ্বীপ রয়েছে, তেমনি দক্ষিণ ভারতের নদীগুলির (যেমন — কৃষ্ণা, কাবেরী, গোদাবরী) ও বদ্বীপ রয়েছে।

উত্তর ভারতের নদনদীর সঙ্গে দক্ষিণ ভারতের নদনদীর বৈসাদৃশ্যগুলি হল

বিষয়উত্তর ভারতের নদনদীদক্ষিণ ভারতের নদনদী
নিত্যবহতাসুউচ্চ হিমালয় পার্বত্য অঞ্চলে উৎপন্ন বলে নদীগুলি বৃষ্টির জল ও বরফগলা জলে পুষ্ট, তাই সারাবছর নদীগুলিতে জল থাকে অর্থাৎ নদীগুলি নিত্যবহ।বেশিরভাগই বৃষ্টির জলে পুষ্ট। এজন্য শুষ্ক ঋতুতে নদীতে জলের পরিমাণ যথেষ্টহ্রাস পায়। তাই নদীগুলি নিত্যবহ নয়।
গতিপথের স্পষ্টতানদীগুলির উচ্চগতি, মধ্যগতি ও নিম্নগতির গতিপথের অধিকাংশই সুস্পষ্ট।  বিভিন্ন পর্যায় অস্পষ্ট এবং তার মধ্যে সমতাও নেই।
নদীর গতিপথের প্রকৃতিনদীগুলির অধিকাংশ নবীন এবং সমভূমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার সময় প্রায়ই গতিপথ পরিবর্তন করে। এজন্য গতিপথে অশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ দেখা যায়।নদীগুলি প্রাচীন এবং গতিপথ পরিবর্তন করে না। এজন্য গতিপথে অশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ সৃষ্টি হয় না।
নদীর প্রবাহপথে নির্মিত খাতনদীগুলি অনেকটা পথ পার্বত্য অঞ্চলের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। পার্বত্য অঞ্চলে নদীর খাত খুব গভীর (সঙ্কীর্ণ ‘V’ বা ‘।’ আকৃতির)।পার্বত্য উপত্যকার দৈর্ঘ্য কম এবং পার্বত্য অঞ্চলে নদীর খাত বিশেষ গভীর নয়।
নদীর দৈর্ঘ্যনদীগুলি দৈর্ঘ্যে খুব বড়ো।নদীগুলি দৈর্ঘ্যে অপেক্ষাকৃত ছোটো।
পলি সঞ্চয়পার্বত্য অঞ্চলে এগুলি খরস্রোতা। এজন্য ভূমিক্ষয় করে বেশি এবং ক্ষয়িত পদার্থগুলি সমভূমিতে সঞ্চয় করে।নদীগুলি প্রাচীন কেলাসিত শিলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় বলে নদীগুলির ক্ষয় করার ক্ষমতা যথেষ্ট কম। তাই এই নদীগুলির সমভূমিতে সঞ্চয়ের পরিমাণও কম হয়।
জলবিদ্যুৎ উৎপাদনপার্বত্য অঞ্চল ছাড়া সমভূমিতে নদীর স্রোত কম বলে| নদীগুলি জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের অনুকূল নয়।অধিকাংশ পথ মালভূমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত বলে বেশিরভাগ নদী জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের উপযোগী।
জলসেচের সুবিধানদীগুলিতে সারাবছর জল থাকে বলে জলসেচের সুবিধা হয়।বাঁধ দিয়ে জল ধরে না রাখলে সারাবছর জলসেচ করা যায় না।
নাব্যতানদীগুলিতে সারাবছর জল থাকে এবং সমভূমিতে নদীর গতি কম, এজন্য নৌপরিবহণের উপযোগী।সারাবছর জল থাকে না এবং মালভূমির জন্য খরস্রোতা। তাই এরা নৌপরিবহণযোগ্য নয়।
উপনদী ও শাখানদীর সংখ্যাদীর্ঘ নদীগুলির উপনদী ও শাখানদী অনেক।নদীগুলির উপত্যকায় মৃত্তিকার গভীরতা খুব বেশি।দীর্ঘ নদীগুলির উপনদী ও শাখানদী কম। নদীগুলির উপত্যকায় মৃত্তিকা অগভীর।
বদ্বীপ সৃষ্টিপ্রতিটি নদী মোহানায় সুবিশাল বদ্বীপের সৃষ্টি হয়েছে।নদীগুলির মোহানায় গঠিত বদ্বীপের আয়তন ক্ষুদ্র। নর্মদা ও তাপ্তীর মোহানায় বদ্বীপ সৃষ্টি হয়নি।

আজকের আর্টিকেলে, আমরা উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর মধ্যে মৌলিক পার্থক্যগুলি তুলনা করেছি। আমরা উৎপত্তি, প্রবাহ, গতি, বন্যাপ্রবণতা, অববাহিকা, অর্থনৈতিক গুরুত্ব এবং পরিবেশগত প্রভাব সহ বিভিন্ন দিকগুলি পরীক্ষা করেছি। এই তুলনাটি দশম শ্রেণীর মাধ্যমিক ভূগোল পরীক্ষার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি “ভারতের প্রাকৃতিক পরিবেশ” অধ্যায়ের “ভারতের জলসম্পদ” বিভাগের একটি মূল বিষয়।

এই আলোচনা আপনাদের পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য একটি দৃঢ় ভিত্তি স্থাপন করবে। মনে রাখবেন, নদীগুলি কেবল ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য নয়, বরং জীববৈচিত্র্য, কৃষি, পরিবহন এবং মানব সভ্যতার জন্য জীবনধারার উৎস। তাই, তাদের গুরুত্ব সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা অত্যন্ত জরুরি।

5/5 - (1 vote)


Join WhatsApp Channel For Free Study Meterial Join Now
Join Telegram Channel Free Study Meterial Join Now

মন্তব্য করুন